জম্মু ও কাশ্বীর ট্রাভেল গাইড

জম্মু ও কাশ্বীর ট্রাভেল গাইড

চিত্তহারী পর্বতমালা এবং মনোমুগ্ধকর ভূ-প্রকৃতির কারণে জম্মু ও কাশ্বীর ‘ভারতের গর্ব’ হিসেবে আখ্যায়িত। এর অবস্থান দেশের সর্ব উত্তর-পশ্চিমে। এই ভূমি বিশাল চমতকার পর্বতমালা, বনভূমি ও বনভূমি বেষ্টিত জায়গার সমন্বয়ে গঠিত। এটা ভারতের সুন্দরতম পর্যটন আকর্ষণ কেন্দ্রগুেলির অন্যতম।

জম্মু ভ্রমণের তথ্য

তাওয়ি নদীর তীরে জম্মু অবস্থিত। লোককাহিনীতে বলা হয় এই জায়গা নবম শতকে রাজা জাম্বুলোচন দ্বারা প্রতিষ্ঠিত কিন্ত্ত এবিষয়ে তেমন কোন প্রমাণ পাওয়া যায়না। শিখরা রাজপুতদের কাছ থেকে দখল নেয়ার পর গুলাব সিং জম্মুকে কাশ্বীরের সাথে যুক্ত করেন।

জম্মু ও কাশ্বীর ট্রাভেল গাইড

ডোগরা, পাহাড়ী ও যাযাবর পাহাড়ী বেদে সম্পদায়ের লোকজন এখানে বাস করে।

জম্মুতে মন্দির ও পুণ্যস্থানসমূহ

জম্মুতে অসংখ্য মন্দির ও তীর্থস্থান রয়েছে তার মধ্যে জনপ্রিয়গুলি হলো,
রঘুনাথ মন্দির
অমর মহল প্রাসাদ
রনবীরেশ¦র মন্দির
বাঘু বাহু মন্দির

ডোগরা আর্ট গ্যালারী

ডোগরা আর্ট গ্যালারীতে পাহাড়ী স্কুল অব আর্ট আছে যেখানে স্থানীয় মন্দিরের চিত্রসম্বলিত দেয়ালচিত্র রয়েছে। জম্মুর চলতি হস্তশিল্প গুলো হলো কাঠের অলংকার, বাঁশের কাজ, খড়ের পাখা এবং শরের ঝুড়ি।

জম্মু ও কাশ্বীর ট্রাভেল গাইড

জম্মুতে উতসবসমূহ
জম্মুতে জমকালোভাবে উতসবগুলো পালন করা হয়। প্রধান উতসবগুলি হলো, •
জানুয়ারী মাসে উদযাপিত লোহরি •
এপ্রিল মাসে উদযাপিত বৈশাখি উতসব
এপ্রিল ও অক্টোবরে উদযাপিত বাহু মেলা •
এপ্রিল মাসে উদযাপিত চৈত্র চন্দাশ •
ফেব্রুয়ারী মাসে উদযাপিত পুরমন্ডল মেলা •
অক্টোবর মাসে উদযাপিত ঝিরি মেলা

আকাশ পথে জম্মু যাত্রা

ইন্ডিয়ান এয়ারলাইন্স ও অন্যান্য কম ভাড়ার বিমান দিল্লি, অম্রিতসর, চন্ডিগড় এবং শ্রীনগর থেকে জম্মু যাতায়াত করে।

ট্রেনে জম্মু গমন

এক্সপ্রেস ট্রেনসমূহ দিল্লী, মুম্বাই, চেন্নাই, কোলকাতা এবং অম্রিতসর থেকে জম্মু যাতায়াত করে।

জম্মু যাওয়ার সড়কপথ

অম্রিতসর, চন্ডিগড়, দিল্লী, কাটরা, শ্রীনগর এবং মানালীর হাইওয়ে নেটওয়ার্কের সাথে জম্মু যুক্ত।

কাশ্বীর ট্রাভেল গাইড

চমতকার ও বিস্ময়কর কাশ্বীর উপত্যকার সৌন্দর্য ভাষায় ব্যক্ত করা অসম্ভব কেবলমাত্র নিজ চোখে দেখে উপলব্ধি করা ছাড়া। হিমালয়ের পাদদেশে রাজকীয় ভঙ্গিমায় দাড়ানো কাশ্বীরের মধ্য দিয়ে ঝিলাম নদী বয়ে গেছে। কাশ্বীরের সৌন্দর্য্য বছরের পর বছর যাবত মানুষকে মন্ত্রমুগ্ধ করে রেখেছে।

ভূ-স্বর্গ নামে পরিচিত কাশ্বীর বহু শাসক দ্বারা শাসিত হয়েছে, অশোক, কুশাণ, গনন্দাস, গুপ্ত, কর্কট, মুঘল, আফগান, শিখ এবং শেষ পর্যন্ত ডোগরা। এমনকি শাসক ও সংস্কৃতির অনুপ্রবেশ সত্বেও কাশ্বীর এখনও তার নিজস্ব ঐতিহ্য ও সারল্য বজায় রেখেছে। কাশ্বীরের অধিকাংশ লোকই মুসলমান, কিছু হিন্দু, শিখ, বৌদ্ধ ও খৃস্টিয়ান রয়েছে।

কাশ্বীরকে অন্য কথায় নদী ও লেকের দেশ বলা যায়, নদী যা মানুষকে মুগ্ধ করে। রাজ্যের প্রধান পানির উতস ঝিলাম নদী অনেক কবি ও গীতিকারের প্রেরণারও উতস।

বৃহত্তম লেক উলার লেক ছাড়াও রয়েছে মানসবল লেক, লিদ্দার, বিখ্যাত দল লেক এবং নাগিন লেক। এইসব হ্রদগুলির বাইরে বাগান রয়েছে যেমন শালিমার বাগান, নাসিম বাগ, নিশাত বাগ এবং কিংবদন্তির চশম ই শাহী যা কাশ্বীরকে আরও সৌন্দর্য্যমন্ডিত করেছে।

কাশ্বীর হলো সেই জায়গা যা বরফ মোড়ানো পাহাড়, মনোহর জলপ্রপাত, শিকার(ওয়াটার ট্যাক্সি), আকর্ষণীয় চিনার গাছ এবং দোলায়মান ফুলের সারি শোভিত। কাশ্বীরের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের সাথে যোগ হয়েছে পেপিয়ার-মাচ, কাষ্ঠশিল্প, পাথরের অলংকার, সুক্ষ্ন পশমিনা এবং শাহতুশ শাল, কার্পেট বয়ন এবং রৌপ্যশিল্প। পাঁচশ বছরের আগেকার সময়ে কলা ও শিল্পে সুস্পষ্ট পারস্য ছাপ ছিল। সমস্ত রাজ্যে বহু বিচিত্র ও অনুপম স্থাপত্যশৈলীসম্পন্ন মসজিদ ও মন্দিরের সমাহার ঘটেছে। বিভিন্ন মসজিদ ও মন্দিরের মধ্যে হজরতবাল মসজিদ, অবন্তীপুরের পাথরের মন্দির, অমরনাথের গুহা, মহান শংকরাচার্যের মন্দির এবং মারটান্ড মন্দির কাশ্বীরকে সৌন্দর্যমন্ডিত করেছে।

কাশ্বীরে দর্শনীয় সবকিছূ

কাশ্বীরে অবশ্য দর্শনীয় সবকিছুর তালিকা
কাশ্বীরের রাজধানী শ্রীনগর
গুলমার্গ
পাহালগাম
সোনমার্গ বা সোনালী জলা
কোকারনাগ
ডাচিগাম বন্যপ্রণী মঠ
ইউমার্গ ও ডাকসাম

কাশ্বীরের উতসব সমূহ

কাশ্বীরে ঈদুল ফিতর, ঈদুল আজহা, শিবরাত্রি এবং দিওয়ালি উতসব সাড়ম্বর ও ধুমধামের সাথে পালিত হয়।

কাশ্বীর গমনের পরিবহণ ব্যবস্থা

আকাশপথ
ইন্ডিয়ান এয়ারলাইন্স প্রতিদিন শ্রীনগর থেকে আহমেদাবাদ, অম্রিতসর, চন্ডিগড়, মুম্বাই, দিল্লী এবং জম্মুর মধ্যে ফ্লাইট পরিচালনা করে থাকে।

রেলপথে

নিকটতম রেলস্টেশন হলো জম্মু তাওয়ি যা দেশের সব অংশকে যুক্ত করেছে এক্সপ্রেস ট্রেনের মাধ্যমে যেমন দিল্লী, মুম্বাই ইত্যাদি।

সড়কপথে

শ্রীনগর এ ওয়ান ন্যাশনাল হাইওয়েতে অবস্থিত এবং আপনি হাইওয়ে ধরে জম্মু, লেহ, কারগিল, গুলমার্গ, মানসবাল, দিল্লী, সোনমার্গ, পাঠানকোট যেতে পারেন।

Read more:
দিল্লী ট্রাভেল গাইড

ভারতের রাজধানী দিল্লী ভারতে ভ্রমণীয় স্থানসমূহের মধ্যে অন্যতম প্রধান স্থান। ‘দিল্লী’ শব্দটি ধিল্লিকা শব্দ থেকে এসেছে যার অর্থ মধ্যযুগের প্রথম Read more

মহাবালিপুরাম ট্রাভেল গাইড

মহাবালিপুরাম তামিলনাড়ু রাজ্যে অবস্থিত এবং পূর্বের মাদ্রাজ বর্তমানের চেন্নাই থেকে ৬০ কি.মি. দুরত্বে এর অবস্থান। বঙ্গোপসাগরের তীরে অবস্থিত এই জায়গায় Read more

বেঙ্গালোর ট্রাভেল গাইড

কেমপে গৌড়া কর্ণাটক রাজ্যের রাজধানী বেঙ্গালোর প্রতিষ্ঠা করেন। এটা একটি প্রধান মহানগরী এবং দেশের শিল্প ও ব্যাবসা-বানিজ্যের কেন্দ্র। ষোড়শ শতকে Read more

চেন্নাই ভ্রমণ গাইড

পূর্বতন মাদ্রাজ শহর বর্তমানের চেন্নাই হলো তামিল নাড়ু রাজ্যের রাজধানী শহর। এটা দেশের মধ্যে চতুর্থ বৃহত্তম শহর এবং তুলনামূলক অন্যান্য Read more

থিরুভানানথাপুরাম ট্রাভেল গাইড

ভারতের তামিলনাড়ু রাজ্যে অবস্থিত থিরুভানানথাপুরাম ভ্রমণের জন্য একটা মনোহর জায়গা। এটা দেশের পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন ও সুপরিকল্পিত শহরগুলির মধ্যে একটি। কেরালার সবটুকু Read more

কলকাতা ভ্রমণ গাইড

কোলকাতা ভারতের সবচেয়ে বড় মহানগরী শহর যার লোকসংখ্যা দশ মিলিয়নের উপরে। ঠাসাঠাসিপূর্ণ ও জনবহুল শহরগুলির একটি হওয়াতে জায়গাটি নানা পেশা Read more