সৌদি আরবের রাজ্য

অবস্থান 
আরব উপদ্বীপের চার-পঞ্চমাংশ জুড়ে অবস্থান করা সৌদি আরব মধ্য প্রাচ্যের বৃহত্তম রাষ্ট্র। দক্ষিণ-পশ্চিম এশিয়ায় সৌদি আরব তিনটি মহাদেশ এশিয়া, ইউরোপ এবং আফ্রিকার সন্ধিস্থানে অবস্থান করছে। পশ্চিমে এর সীমান্ত লোহিত সাগর আর পূর্বে আরব উপসাগর দ্বারা চিহ্নিত।

দক্ষিণ সীমান্তে আছে ইয়েমেন এবং ওমান সালতানাত। পূর্বে আরব আমিরাত, কাতার এবং দ্বীপরাষ্ট্র বাহরাইন। উত্তর সীমান্তে কুয়েত, ইরাক আর জর্ডান রয়েছে। দেশের মোট আয়তন ২,৩৩১,০০০ বর্গ কি.মি. বা ৯০০,০০০ বর্গমাইল।

প্রাকৃতিক অবস্থা 
দেশটির প্রকৃতি বৈচিত্রময়- সুপরিচিত মরুভূমি ছাড়াও দক্ষিণ-পশ্চিম কোণে আছে সবুজ পর্বতময় এলাকা। অবয়ব মরুময় হলেও মরুতেও যথেষ্ট প্রাণ রয়েছে বিশেষ করে মরুতে শীতকালীন বৃষ্টির পরে মরু ক্যামোমিল, বুনোফুল, সূর্যকমল, বুনো শে¦তদুর্বা সাধারনভাবে দৃশ্যমান এবং ছোট প্রাণী যেমন টিকটিকি, সজারু, এবং খরগোশ দেখতে পাওয়া যায়। সৌদি ভূখন্ড বিচিত্র কিন্ত্ত মোটের ওপর এর অবয়ব অনুর্বর ও রুক্ষ সেসাথে আছে লবনাক্ত ভূমি, নুড়িময় সমতল এবং বালিয়াড়ি আবার কিছু হ্রদ ও ঝর্ণাধারাও আছে।

দেশের দক্ষিণে বিখ্যাত শুন্যাঞ্চল রয়েছে(আরবীতে রাব আল খালি) যা প্রথিবীর বৃহত্তম একটানা বালুকাময় মরুভূমি। এটা আবার উত্তরের অন্য একটি বালুকাময় মরুভূমি নাফুদ এর সাথে যুক্ত। দেশের দক্ষিণ-পশ্চিম পর্বতময়, কোন কোন পর্বত ৯,০০০ ফুট উচ্চতা সম্পন্ন এবং এখানে বৃষ্টিপাতও হয়।

ভাষা 
অফিসিয়াল ভাষা আরবী হলেও সৌদিতে ইংরেজীও চালু রয়েছে ব্যাপকভাবে। হোটেল কর্মচারীগণ জার্মান এবং ফ্রেঞ্চ ভাষা বলতে পারে।

সারা মধ্যপ্রাচ্য জুড়ে ও পৃথিবীর অন্যান্য জায়গায় আরবী ভাষা ব্যাপকভাবে প্রচলিত ও কথিত। জাতিসংঘের অফিসিয়াল ভাষাগুলির মধ্যেও আরবী অন্যতম। মুসলমানদের পবিত্র ধর্ম পুস্তক কোরআনে উচ্চমার্গের আরবী ভাষা ব্যবহৃত হয়েছে যা শুধু লেখায় ব্যবহৃত হয়, কথ্যে তেমন প্রচলিত নয়।

মানসম্মত আধুনিক আরবী ভাষা সংবাদপত্র, টেলিভিশন ও স্থানীয় কথ্য রীতি অনুযায়ী ব্যবহৃত হয়। সাধারণ আরবী কথ্য ভাষা শেখা তেমন কঠিন কিছু নয়।

ক্লিক করুন এখানে সৌদি আরবে প্রচলিত কিছু আরবী প্রবাদবাক্যের জন্য।

স্থানীয় সময়: জিএমটি প্লাস ৪ ঘন্টা

জলবায়ু 
সৌদি আরব পৃথিবীর শুষ্কতম দেশগুলির অন্যতম যেখানে বার্ষিক গড় বৃষ্টিপাত পাঁচ ইঞ্চির বেশী নয়। ইউরোপ আমেরিকার মতো নির্ধারিত কোন ঋতু নেই। শীতের মাসগুলিতে দক্ষিণমুখী বাতাসের আচরণে ঋতুর তারতম্য বোঝা যায় যখন বৃষ্টি হয় ও আবহাওয়া ঠান্ডা হয়ে যায়। অক্ষাংশ, সাগরের নৈকট্য ও সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে উচ্চতাও জলবায়ুর উপরে প্রভাব ফেলে। শুন্যাঞ্চলে বিশাল দক্ষিণ-পুর্ব বালুকাময় মরুভূমিতে দশ বছরেও বৃষ্টিপাত লক্ষ করা যায় না।

দক্ষিণের আসির উচ্চভূমিতে মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে বার্ষিক গড় বৃষ্টিপাত ২৫৫ মি.মি.(১০ ইঞ্চি) ছাড়িয়ে যায়। লোহিত সাগরের তীরে অবস্থিত জেদ্দায় সারাবছর গরম ও আদ্রতাপূর্ণ আবহাওয়া বিরাজমান থাকে। অপরপক্ষে তাইফে ও আভায় অনেক সহনীয় জলবায়ু বিদ্যমান থাকে।

গ্রীষ্মকাল অত্যন্ত গরম থাকে, কোথাও কোথাও তাপমাত্রা ৪৯ ডিগ্রি বা ১২০ ডিগ্রি ফারেনহাইট। শীতকালে যথেষ্ট ঠান্ডা থাকে গড় তাপমাত্রা জেদ্দায় ২৩ ডিগ্রী সে.(৭৪ ফা.) ও রিয়াদে ১৪ ডিগ্রী (৫৮ ফা.)। দেশের মধ্য ও উত্তরাংশে শীতকালে তাপমাত্রা হিমাঙ্কের নীচে নেমে যায় এবং দক্ষিণ-পশ্চিমের উচ্চভূমিতে তুষার ও বরফ পড়ে । অক্টোবর থেকে মে মাসের মধ্যে সাধারণতঃ রাত ঠান্ডা ও দিনের বেলায় রৌদ্রকরোজ্জ্বল থাকে।

উপকুল অঞ্চলে এপ্রিল থেকে নভেম্বর পর্যন্ত রাতের তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রী ফা. পর্যন্ত নেমে যায়। অপরপক্ষে গড় গরমও এখানে বেশী তাই শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ ছাড়া জীবন-যাপন খুবই অসুবিধাজনক।

ব্যাংকঃ 
সৌদি মুদ্রার একক হলো সৌদি রিয়াল যা ১০০ হালালায় বিভক্ত। ১,৫,১০,৫০,১০০ ও ৫০০ রিয়ালের নোট প্রচলিত। এক রিয়ালের কয়েনও প্রচলিত আছে। বিশেষ উত্তোলন অধিকার(এসডিআর) এর উপর নির্ভর করে রিয়ালকে ডলারে কুওট করা হয়।

এসডিআর ও ডলারের মুদ্রামানের পার্থক্যের কারণে সময় সময় মূল্য সমন্বয় করা হয় যাতে কমবেশী এক ডলার=এসআর ৩.৭৫ থাকে। রিয়ালকে রূপান্তরিত করা ও দেশের বাইরে অর্থ প্রেরণে কোন নিষেধাজ্ঞা নাই।

সৌদি মুদ্রা অধিকাংশ বিদেশী মুদ্রায় রুপান্তরিত করা যায়। সারাদেশে বানিজ্যিক ব্যাংকসমূহ রয়েছে অধিকন্ত্ত মানি চেঞ্জাররা বিদেশী মুদ্রার কারবার করে সেসাথে ব্যাংকিং অর্থ স্থানান্তরে কাজ করে।

বিভিন্ন ব্যাংকের মধ্যে ব্যাংকিং সময়ের সামান্য পার্থক্য আছে । শনিবার থেকে বুধবার: ০৮০০-১২৩০ এবং ১৭০০-১৯০০ বৃহস্পতিবার ০৯০০-১২৩০, মানি চেঞ্জাররা দীর্ঘ সময় অফিস খোলা রাখেন।

মুদ্রা বিনিময় ও স্থানান্তর সহজ। সংবাদপত্রে প্রতিদিন প্রধান প্রধান মুদ্রার বিনিময় হার উদ্ধৃত থাকে।

পোশাক 
সৌদি আরবে ধর্ম আর রীতি অনুযায়ী রক্ষণশীল পোশাক নারী ও পুরুষ উভয়ের জন্যই নির্ধারিত। বিদেশীদের কিছুটা স্বাধীনতা দেয়া হয় পোশাকের ক্ষেত্রে কিন্ত্ত তাদের কাছে স্থানীয় রীতিনীতি অনুসরণের প্রত্যাশা করা হয় বিশেষ করে প্রকাশ্য স্থানে। সাধারনভাবে বিদেশী পুরুষদের লম্বা পাজামা ও জামা পরতে হয় দেহের উর্ধাংশের জন্য।

বিদেশী মেয়েদের পরতে হয় ঢিলা ঘাগরা যার ঝুল হাঁটুর নীচ পর্যন্ত বিস্তৃত হতে হবে। ঘাগরার হাতা কনুই পর্যন্ত লম্বা ও উধ্বাংশে গলরেখা বরাবর হতে হবে। সর্বোত্তম পোশাক নির্দশিকা হলো ‘প্রকাশ না করে ঢেকে রাখ’।

কিশোর বয়সীদেরও প্রকাশ্য স্থানে ভালভাবে পোষাক পরিহিত হতে হবে। জিনস যেন আটোসাটো না হয় এবং লো নেক ও ট্যাংক টপ পরা নিষেধ। খাটো প্যান্ট পরাও নিষেধ।

সৌদি আরবে বসবাসরত অমুসলিম নারীগণ প্রায়ই আবাইয়াহ পরেন স্থানীয় রীতির প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শনের জন।

ডাক ব্যবস্থা 
সব চিঠিপত্রে ডাক কোড ব্যবহার করা হয় এখানে। ডাকঘরসমূহে ও অন্যান্য নির্ধারিত বিক্রয়কেন্দ্রে ডাকটিকেট পাওয়া যায়।

টেলিগ্রাফ 
টেলেক্স ও ফ্যাক্স: ২৪ ঘন্টার টেলিগ্রাফ ও টেলেক্স সুবিধা পাওয়া যায় প্রধান ডাকঘর ও হোটেলসমূহে।

ইন্টারনেট 
ইন্টারনেট সার্ভিস সাইবার ক্যাফে ও প্রধান হোটেলগুলিতে পাওয়া যায়।

যানবাহন 
বিমান পথ- প্রধান শহরগুলির মধ্যে দীর্ঘ দুরত্বের কারণে আকাশপথে সৌদি আরবের মধ্যে ভ্রমণ করা সবচেয়ে সুবিধাজনক ও বাস্তবসম্মত। জাতীয় বিমান সংস্থা সাউদিয়া সমন্বিত নেটওয়ার্কের মাধ্যমে আভ্যন্তরীণ ফ্লাইটসমূহ পরিচালনা করে।

রিয়াদ থেকে জেদ্দাহ যেতে এক ঘন্টার কিছু বেশী সময় এবং রিয়াদ থেকে পূর্ব উপকুলের দাহরান যেতে এক ঘন্টার কিছু কম সময় প্রয়োজন হয়। ২৪টি আভ্যন্তরীন বিমান বন্দর রয়েছে এবং সেসাথে চার্টার্‍ড ফ্লাইটও পাওয়া যায় বেশী দুরের মরুভূমি অঞ্চলগুলিতে যাওয়ার জন্য।

সৌদি আরবে প্রধান তিনটি আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর রয়েছে: রিয়াদে কিং খালিদ আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর জেদ্দায় কিং আব্দুল আজিজ আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর দাহরানে কিং ফাহাদ আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর

আভ্যন্তরীণ বিমান চলাচলের পাশাপাশি এই সমস্ত বিমান বন্দর থেকে প্রচুর আন্তর্জাতিক সংস্থার বিমান চলাচল করে। সব প্রধান বিমান বন্দর থেকে ভ্রমণকারীদের গন্তব্যে যাওয়ার জন্য লিমুজিন সার্ভিস রয়েছে। সৌদি আরবীয় পাবলিক যান চলাচল কোম্পানী (সাপটকো) পাবলিক সার্ভিস বাস পরিচালনা করে থাকে বিমান বন্দর থেকে বিভিন্ন হোটেল ও শহর কেন্দ্র।

রেলঃ প্রথম শ্রেণীর শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ট্রেন সার্ভিস রয়েছে প্রতিদিন রিয়াদ থেকে পূর্ব উপকুলের দাম্মাম পর্যন্ত।

বাসঃ স্যাপ্টকো (সাউদি আরাবিয়ান পাবলিক ট্রান্সপোর্ট কোম্পানী) অধিকাংশ শহরগুলি ও এমনকি বড় শহরগুলির মধ্যেও বাস সার্ভিস পরিচালনা করে থাকে। বাস ভ্রমণ আরামদায়ক ও ভাড়া সাশ্রয়ী সাধারনতঃ ইউরোপ ও আমেরিকার তুলনায়। প্রত্যেক বাসে শিশু ও নারীদের জন্য আলাদা ব্যবস্থা রয়েছে।

ট্যাক্সি: শহরের মধ্যে যান চলাচল হাতের নাগালেই পাওয়া যায়। ট্যাক্সিগুলি সাশ্রয়ী ও সরকার নির্ধারিত ভাড়ায় চলাচল করে।

কার রেন্টাল
সৌদি আরবের অধিকাংশ শহরেই ভাড়ায় কার পাওয়া যায়। সৌদি নাগরিকদের বৈধ গাড়ী চালনা লাইসেন্স থাকতে হবে। পর্যটকদের বেলায় নিজের দেশের চলতি ড্রাইভিং লাইসেন্স অথবা আন্তর্জাতিক ড্রাইভিং লাইসেন্স থাকতে হবে। আমেরিকার মতো ডানহাতে এখানে গাড়ী চালনা করতে হয়।

Read more:
হজ্বের জন্য সাধারন উপদেশ ও পরামর্শ

হজ্ব হলো ইসলামের পঞ্চম স্তম্ভ যা প্রত্যেক সামর্থ্যবান মুসলিম নর-নারীর জন্য সারা জীবনে অন্তত একবার ফরজ। উমরাহ পালন হলো হজ্বের Read more

enEnglish arArabic